Logo
My Journal
Blog

Timeline

Blog

মানুষ ভায়োলেন্স পছন্দ করে, আমিও…

মানুষ ভায়োলেন্স পছন্দ করে। ক্ষেত্রবিশেষে অংশগ্রহন করে। বাকিটা সময় দেখে। মনে পড়ে, পাড়ার ছেলেপেলেরা ছোট্ট বিড়ালের বাচ্চার গলায় দড়ি বেঁধে পানিতে ফেলে দিয়ে হাততালি দিতো? ভিজে চুপচুপে বিড়াল ছানার গলায় রশি বেঁধে রাস্তায় হিঁচড়ে টেনে নেয়া হত। কি অদ্ভুত ফুর্তি কাজ করতো সবার ভেতর। বড়রা এগুলো স্নেহের চোখে দেখতো, এগুলো কমবয়সী দুষ্টামি। বড় ইটের টুকরো দিয়ে চুপচাপ লেজ নাড়া কুকুরটির পা লুলা করে দেয়ার কথা মনে পড়ে? শুনতে পান ব্যাথায় কুই কুই করতে থাকা কুকুরটির আর্তনাদ? নিশ্চয়ই শুনেছেন, অনেকে নিজেও করেছেন এই কাজ। একজন বোধ বুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ হয়েয়েও গরম পানি মেরে জ্বালিয়ে ছারখার করে দিয়েছে কুকুরটির শরীর। তৃপ্তির সাথে সবাই তা দেখেছে, কেউ কেউ বাহবা দিয়েছে। তেমন কোন দোষ ছিলো না কুকুরটির, রুটির গন্ধে লেজ নাড়ছিল হয়তো। মানুষ ভায়োলেন্স পছন্দ করে। চোর ধরে পিটিয়ে আধমরা করাটাকে তারা বীর পুরুষের কাজ মনে করে। একটা হাত ভেঙ্গে দেয়া হোক, কেউ বলে একটা পা, উৎসাহী কেউ প্রস্তাব করেন চোখ গেলে দেয়া হোক। মানুষ ভায়োলেন্সের ভেতর অদ্ভুত মজা পায়। ক্লাসের দুর্বলতম ছেলেকে মাঠে পিটিয়ে তার গায়ে প্রস্রাব করে অদ্ভুত মজার খেলা করে তার সহপাঠীরা। ক্যাম্পাসে নতুন আসা ছেলেটিকে নাজেহাল করে চিরচারিত ঐতিহ্য বজায় রাখে বড় ভাইরা। শিক্ষকের কার বেত সবচেয়ে মোটা, সে তত ভালো কড়া শিক্ষকের মর্যাদা পায়। কাজের মেয়েটিকে প্রতিদিন না মারলে ভালো লাগে না গৃহিণীর। বোকা ভেবে ঠাকতেই থাকে মানুষগুলো, ভাবে, বোকা ছেলে কিছু বোঝে না। কি প্রচণ্ড চালাক হয়ে তৃপ্তির ঘুম দেয় তারা। এত মজা ঠকাতে! মানুষ নৃশংসতা পছন্দ করে। দূরে সুন্দর একটা পাখি বসে থাকতে দেখলে ঢিল বা চাকা খুঁজতে মনে চায়। ইশ! এক ঢিলে পাখিটার একটা পা ভেঙ্গে দিতে পারতাম! কিংবা একটা ডানা! মানুষ নির্মমতা পছন্দ করে। খাঁচায় পাখি আটকে রেখে একটা কাঠি দিয়ে সেটাকে খোঁচাতে পছন্দ করে। মানুষ ভায়োলেন্স পছন্দ করে। কুকুরছানা মাকে দেখে যখন দুধ খেতে যায় তখন সেগুলোর ভেতর থেকে একটাকে তুলে ছুঁড়ে ফেলে ড্রেনে। কুকুরের লেজের সাথে বাজি জ্বালিয়ে কি মজাই না পাওয়া যায়, প্রাণ ভয়ে ছুটতে থাকা কুকুরটিকে দেখে? মানুষ নির্মমতা পছন্দ করে। দুধেল গাইয়ের বাছুরটি বেঁধে রেখে দেয়, খেয়ে শেষ করে ফেললে বাছুর কি বিক্রি করবে? বাছুরকে ডাকতে থাকে গরুটি। হাস্যকর শোনাচ্ছে না, কি গরু বাছুর নিয়ে ভাবছেন ভাই, আপনে একটা বলদ। হয়তো আমি আসলেই গাধা। আমি আজও লুকিয়ে লুকিয়ে কুকুরকে রুটি খাওয়াই। লুকিয়ে কারণ কেউ দেখে ফেললে হাসাহাসি করবে। বেচারা কুকুর তো আর লুকাছুপি বোঝে না, আমাকে দেখলেই দৌড়ে আসে। আশেপাশে লোকজন দেখলে আমি কৃত্রিম হুশ হুশ শব্দে তাড়িয়ে দেই। অবলা প্রাণীর প্রতি মায়া দেখানো যে এক ভীষণ দুর্বলতা। আমি দৌড়ে ছুটে যাই কারো বিড়াল ছানা মরে গেছে শুনে। আমি আজও কাঁদি আমার পোষা কুকুরটির জন্য, যাকে বিষ খাইয়ে মারা হয়েছিলো জমাজমি জনিত বিবাদে। মানুষ ভায়োলেন্স পছন্দ করে। তার ব্যতিক্রম আমিও নই। কুকুরের গলায় দড়ি বাঁধা মানুষগুলিকে আমি কল্পনায় ইট দিয়ে থেঁতলে মারতে থাকি। বিড়ালছানাটিকে যারা পানিতে ফেলে তাদেরকে পানির নিচে মাথা চেপে ধরে থাকি কল্পনায়। তাদের একটু শ্বাস নেবার আকুতি আমি অনুভব করি। কুকুরটির গায়ে গরম মাড় ঢেলে দেয়া লোকটির গায়ে আমি গরম টগবগে তেল ঢালার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করি। তাদের গলায় দড়ি লাগিয়ে পিচ ঢালা পথে টানতে থাকি। মাঠের স্মৃতি আমার শরীর হাত পা নিশপিশ করায়। কল্পনায় তাদের অস্থিমজ্জা গুঁড়ো গুঁড়ো করি। ঠকিয়ে যাওয়া মানুষগুলোকে ঝাঁঝরা করি প্রতিনিয়ত। কারণ আমার অভিধানে ক্ষমা শব্দটা মুছে দিয়েছি বহু আগে। অর্থনৈতিক দুর্বলতার কারণে বন্ধুরা যখন খেলায় নেবে না, বাসায় ফ্রিজ টিভি দামী খেলনা নেই, তাই আপনার বিকেল যখন জানালার গ্রিল ধরে কাটবে, তখন আপনিও ক্ষমা শব্দটা মুছে ফেলবেন। অনেক নৃশংস চিন্তাগুলি তাই না? কিন্তু জানেন, মায়াভরা মানুষগুলো প্রয়োজনে কতটা নির্মম হতে পারে, কতটা ভয়ংকর হতে পারে আপনি তা কল্পনাও করতে পারবেন না। সহজকে কখনো কঠিন হতে দিতে নেই। সামান্য কুকুরছানার জন্য যার এতটা ভালোবাসা, মানুষকে সে যখন ভালবাসে, তার পরিমাপ করার যন্ত্র এখনো আবিষ্কৃত হয়নি। আর সেই ভালোবাসা যখন মার খায়, ঠকে যায় তখন তা কতটা প্রচণ্ড ঘৃণায় রূপ নিতে পারে তা ভাবনার বাইরে। এই প্রতিশোধের আগুন নাকি ভয়ংকর, কথাটি সত্যি। কিন্তু এই আগুনে আপনি যত পুড়বেন, আপনি তত খাটি হবেন। আমি রাস্তার ঐ কুকুরটির জন্য শত শত বার পুড়তে রাজি আছি। ঠিক কে ঠিক, সত্য কে সত্য, মায়ার বিনিময় মিথ্যার উত্তর দিতে আমি আরও হাজারবার পুড়তে রাজি। মানুষ ভায়োলেন্স পছন্দ করে। আমিও করি। মুখোশ পড়া মানুষদের ক্ষমা না করার ভায়লেন্স।

Aminul Hoque Babu with dog

“Do you know why people like violence? It is because it feels good. Humans find violence deeply satisfying. But remove the satisfaction, and the act becomes… hollow.”

I want to remove that satisfaction.

Egiyecholo.com

2 Comments
    • Hridoy
      Jan 4, 2020 at 7:00 PM / Reply

      Onk valo laglo bhai

Leave A Comment